সোমবার ২৬শে আগস্ট, ২০১৯ ইং ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

তানিয়ার মৃত্যুতে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে তার পরিবার

আপডেটঃ ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ | মে ১২, ২০১৯

নিউজ ডেস্কঃ

কিশোরগঞ্জে কটিয়াদীতে চলন্ত বাসে গণধর্ষণ ও হত্যার শিকার শাহিনুর আক্তার তানিয়া।তিনি ২০১১ সালে, দাখিল পাশ করেন তার গ্রামের লোহাজুরীর  ঝিরারপাড় দারুল উলুম দাখিল আলিয়া মাদ্রাসা থেকে, ২০১৩ সালে আমিল পাশ করেন কটিয়াদী  ফেকামার ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসা থেকে, পরে তানিয়া মানুষের সেবা করার লক্ষে তিনি  ইচ্ছাকৃত ভাবে ভর্তি হন ইবনে সিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। ২০১৭ সালে ইবনে সিনা মেডিক্যাল কলেজ  হাসপাতাল থেকে নার্সিং শেষ করেন।পরে,ইবনে সিনা মেডিক্যাল হাসপাতাল কলেজে নার্স হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।তানিয়া তার সর্বোচ্চ পরিশ্রম দ্বারা সর্বদা মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকার  চেষ্টা করতেন।
শাহিনুর আক্তার তানিয়ার বড় ভাই মো:কফিল উদ্দিন বলেন,আমার বোন তানিয়ার সাথে আমি ঢাকাতে  আমরা একটি কক্ষে বাসা বাড়া নিয়ে থাকতাম। তানিয়া আমাকে বিভিন্ন কাজে সহযোগিতা করতো।সবসময় আমার খবর নিতো, আমি খাবার খাইছি কিনা, আমি অসুস্থ কিনা। সর্বপ্রকার খোঁজ খবর নিতো, এক কথায় তানিয়া আমার বন্ধু মতন ছিলো, সেই বন্ধুর মতো বোন কে হারিয়ে আমি অসহায় হয়ে গেলাম।
তানিয়ার পিতা মো:গেয়াস উদ্দিন ipcs news কে জানান, আমার চার ছেলে আর দুই মেয়ের মধ্যে, তানিয়া ছিলো সবার ছোট মেয়ে। ছোট মেয়ে হয়ে ও তানিয়া পরিবারের প্রতি অনেক দায়িত্বশীল ছিলো। আমাকে প্রতিদিন কম করে হলো, দৈনিক ২ থেকে ৪ বার ফোন করে খোঁজ খবর নিত। আমি কেমন আছি, নামাজ পরছি কিনা, খাবার খাইছি কিনা, নিজের প্রতি খেয়াল রাখি কিনা।আমি অসুস্থ কিনা। আমি আমার দায়িত্বশীল মেয়ে কে হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছি।
উল্লেখ্য, ইবনে সিনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া গত সোমবার পরিবারের সদস্যদের সাথে প্রথম রোজা রাখার জন্য তার নিজ গ্রামের বাড়ি যাওয়ার জন্য 

বিমানবন্দর স্বর্নলতা পরিবহনে একটি বাসে ওঠেন। বাসটি কটিয়াদী বাসস্ট্যন্ডে আসার পর তানিয়া ব্যাতীত বেশির ভাগ যাএি বাস থেকে নেমে পড়ে। বাসটি কটিয়াদী  ছাড়ার  পর কিশোরগঞ্জের-ভৈরব মহাসড়কে আসার পর রাত ৮ টার সময় বাজিতপুর উপজেলা পিরিজপুর জামতলী  নামক একটি স্থানে তানিয়াকে বাসের মধ্যে একা পেয়ে বাসটির ড্রাইভার, হেলপারসহ কয়েকজনে দ্বারা  গণধর্ষণ ও হত্যার শিকার হন। তানিয়া কটিয়াদী উপজেলা লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে।
 এ ঘটনায় অভিযুক্ত  বাসচালক নূরুজ্জামান ওরফে নূর মিয়া (৩৮) ও হেলপার লালন মিয়াকে (৩২) গ্রেফতার করা হয়েছে।পাশাপাশি ওই বাসের পিরিজপুর ও কটিয়াদীর দুই লাইনম্যানসহ আরও তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পাঁচজনকে ৮ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।


IPCS News /কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি
জাকির – রুবেল