মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

পদ্মায় ঝুঁকি নিয়েই নৌ-ভ্রমণ বিনোদন-প্রেমিদের

আপডেটঃ ৯:১৮ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৯, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহীর পদ্মায় নৌকায় চড়ে বিনোদন-প্রেমীরা প্রতিদিনই ঘুরছেন।এখন ভরা পদ্মায় অথৈ পানি।বড় বড় ঢেউ আছড়ে পড়ছে কুলে।ঝুঁকি নিয়েই নৌ-ভ্রমণে ক্ষান্তি নেই বিনোদন প্রেমিদের।নিরাপত্তার বিষয়টি উপেক্ষিতই থেকে যাচ্ছে বরাবর।পদ্মায় অনিরাপদ নৌ-ভ্রমণে একের পর এক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির পরেও নিরাপত্তার প্রশ্নটি গুরুত্ব পায়নি।রাজশাহী ফায়ার সার্ভিসের তথ্য মতে গত ৩ বছরে রাজশাহীর পদ্মায় নৌ-দুর্ঘটনায় প্রাণ গেছে ১৮ জনের।এর মধ্যে শখের বসে নগরীর পদ্মায় নৌকায় ভ্রমণ করতে গিয়ে মারা গেছে ৫ জন।দুইজন নবগঙ্গা এলাকায়, দুইজন র্টি বাঁধ এলাকায় ও একজন মুক্ত মঞ্চ এলাকায়।ফায়ার সার্ভিসের দায়িত্বরররা জানাচ্ছেন, পদ্মায় এই তিনটি পয়েন্ট ভরা মৌসুমে বিনোদন প্রেমীদের জন্য নৌকা ভ্রমন অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ, এর পরেও জীবনের ঝুঁকি নিয়েই প্রতিদিন বিনোদন প্রেমীরা ঘুরছেন মাঝনদী।দুর্ঘটনা ঘটলে এ নিয়ে কিছুদিন আলোচনা হয়, মেলে ব্যবস্থা নেওয়ার আস্বাশ কিন্তু পরবর্তীতে পরিস্থিত স্বাভাবিক হয়ে যায়।

এদিকে নৌকায় অতিরিক্ত যাত্রী বহন না করার নির্দেশনা থাকলেও তা অমান্য করে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী উঠানোর অভিযোগও আছে।বর্তমানে প্রমত্তা পদ্মানদী এখন পানিতে টইটুম্বুর।তার মধ্যেই পাল্লা দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই চলছে ডিঙি নৌকা ও ইঞ্জিনচালিত নৌ-যানগুলো।চলতি আগস্ট মাসের ভরা মৌসুমে সপ্তাহব্যাপী পদ্মার র্টিবাঁধ, নবগঙ্গা, পদ্মা গার্ডেন ও মুক্ত মঞ্চ এলাকায় ঘুরে ও যাত্রী চালকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে।নৌ-ভ্রমণে লাইফ জ্যাকেট পরা বাধ্যতামূলক হলেও অনেক নৌকায় তা নেই।

আর যাদের আছে তারাও লাইফ জ্যাকেট ব্যবহার করতে অনীহা প্রকাশ করে।যাত্রীদের অভিযোগ কিছু নৌকায় যে সকল লাইফ জ্যকেট থাকে তা নোংরা ও দুগর্ন্ধ যুক্ত। প্রতিবেদকও এর সত্যতা পেয়েছে।বিভিন্ন পয়েন্টে নদীর পাড়ে ৮ থেকে ১০ নৌকা থাকে।এসব অনেক নৌকার লাইফ জ্যাকেট নেই।চালকরা জানাচ্ছেন, পদ্মায় নৌকায় যারা আসে তারা ভালো কাপড় পড়ে আসে তাই অনেকে লাইফ জ্যাকেট পরতে চায় না।

তুবুও আমাদেও পক্ষ থেকে বার বার অনুরোধ করি।অনেকে না পরলেও হাতে ধরে রেখে দেয়।যে সকল নৌকায় লাইফ জ্যকেট নেই তাদেরও রাখার বিষয়ে বলা হয়।রাজশাহী ফায়ার সার্ভিসের সাংশ্লিষ্ঠরা জানাচ্ছেন, নৌ-যানে ত্রুটি, চালকের অদক্ষতা, ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা, নিরাপত্তা নির্দেশনা অমান্য করা, চলার পথে দুই নৌকার মধ্যে প্রতিযোগিতা, দুর্ঘটনার জন্য পূর্বপ্রস্তুতি না থাকায় একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছে।

গত বছর সর্বশেষ (২৫ সেপ্টেম্বর) পদ্মায় নৌ-দুর্ঘটনা ঘটে।১৫ জন যাত্রী নিয়ে একটি নৌকা নদীতে ডুবে যায়।দুর্ঘটনায় ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা গেলেও আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের (এআইইউবি) বিবিএ তৃতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী সাদিয়া ইসলাম সূচনা ও তার চাচাতো ভাই রিমন নিখোঁজ হন।ঘটনার সাতদিন পর পদ্মায় তাদের দু’জনের মরদেহ ভেসে ওঠে।

পরে স্থানীয়রা ভাই-বোনের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে নৌ-পুলিশের কাছে দেন।তার আগে পদ্মায় নৌ-দুর্ঘটনার গত তিন বছরে পদ্মায় নৌ-দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১৮জনের।এছাড়াও নদীতে চলন্ত নৌকা থেকে যাত্রীদের পড়ে যাওয়ার ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটছেই।২০১৭ সালের মে মাসে মহানগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় ঝড়ের কবলে পড়ে পদ্মায় ডুবে মারা যান পাঁচজন।

এরপর ২০১৮ সালে প্রাণ হারান অন্তত দুইজন।২০১৯ সালে ১৫ জুলাই মহানগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় চলন্ত নৌকা থেকে পড়ে যান দুই তরুণী।নৌকার কাঠের বেঞ্চসহ উল্টে পড়ে যান তারা।এরপর এই বেঞ্চটাকেই আকড়ে ধরে বেঁচে যান তারা।পদ্মায় বড় দুর্ঘটনা ঘটে গত বছরের ৬ মার্চ।মহানগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় বর-কনেসহ ডুবে যায় দুটি নৌকা।

এ ঘটনায় বিয়ের পরদিনই দুই শিশুসহ নয়জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছিলো।পদ্মার পাড়ে পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা মোন্তাজুর রহমান জানান, অনেক নৌকাগুলোতে লাইফ জ্যাকেট নেই।থাকলেও যাত্রীর তুলনায় অনেক কম।আবার সেগুলো নোংরা ও ধুলোবালি লেগে আছে।ফলে লাইফ জ্যাকেট না পরেই নৌ-ভ্রমণ করছেন অনেকে।এতে করে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থাকছে।

মেহেদী হাসান নামের আরেকজন জানান, অনেক নৌকা বেশি যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী উঠায় নৌ-চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।লাইফ জ্যকেট পরার বিষয়ে বলা হলেও বেশিরভাগ মানুষ তা এগিয়ে চলছেন।রাজশাহী নৌ পুলিশের রেঞ্জের পরিদর্শক ওবাইদুল হক জানান, এই বর্ষা মৌসুমে পদ্মায় মোট ৩০ টি নৌকায় জরিমানা করা হয়েছে।

প্রতিদিন আমাদের অভিযান অব্যহৃত রয়েছে।রাজশাহী অঞ্চলের নৌ-পুলিশের এস পি দীন মোহাম্মদ জানান, নদীতে নৌকা ভ্রমণে লাইফ জ্যাকেট বাধ্যতামূলক।এর আগে যাত্রীদের লাইফ জ্যাকেট না পরিয়ে নৌকায় ওঠানোর কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে।এ বিষয়ে আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান করছি।যাদের লাইফ জ্যকেট নেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

IPCS News Report : Dhaka: আবুল কালাম আজাদ : রাজশাহী