সোমবার ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

চন্দ্রিমায় গিয়ে মারামারি করে কেন ? ওখানেতো জিয়ার লাশ নাইঃ প্রধানমন্ত্রী

আপডেটঃ ৪:৪১ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৬, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

বিএনপি চন্দ্রিমায় জিয়াউর রহমানের সমাধি থাকার দাবি করলেও সেখানে জিয়ার লাশ নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তিনি বলেন, চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়ার লাশ নাই, বিএনপি ওখানে গিয়ে বিশৃংখলা-মারামারি করে কেন ? প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের (উত্তর ও দক্ষিণ) উদ্যোগে আয়োযিত শোক দিবস উপলক্ষে স্মরণ-সভায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি সভায় যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।চন্দ্রিমা উদ্যানে বিএনপির সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, চন্দ্রিমা উদ্যানে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবর নেই।তারপরও বিএনপি সেখানে গিয়ে বিশৃঙ্খলা করে।মারামারি ধস্তাধস্তির অভ্যাস তাদের এখনও যায়নি।বিএনপি জানে না সেখানে (চন্দ্রিমা উদ্যানে) জিয়া নাই, জিয়ার লাশ নাই? তাহলে এতো নাটক করে কেন? খালেদা জিয়া বা তারেক জিয়া কি কখনো তার লাশ দেখেছে? ওখানে একটা বাক্স নিয়ে এসেছিল।

সেখানে গিয়ে মারামারি ধস্তাধস্তি কেন ? প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের জাতির পিতা স্নেহ করতেন,মর্যাদা দিতেন।সেজন্য সেনাবাহিনীতে উপ-প্রধান পদ না থাকলেও জিয়াউর রহমানের সংসার রক্ষায় ঢাকায় এনে তাকে সে পদ দিয়েছিলেন।সরকার প্রধান বলেন, আমার কোনো আকাঙ্ক্ষা নেই, মৃত্যুভয়ও নেই।বাংলাদেশ থেকে জাতির পিতার নাম কেউ মুছতে পারবে না।

‘বাংলাদেশ ব্যর্থ হোক‘ স্বাধীনতার চেতনা মুছে যাক, ষড়যন্ত্রকারীদের এটাই উদ্দেশ্য ছিল।কিন্ত তা করতে দেব না।জাতির পিতার নাম এখন তারা আর মুছতে পারবে না।যে ইতিহাস তারা মুছে ফেলতে চেয়েছিল, এখন তারা আর পারবে না।জাতির পিতার বিরুদ্ধে গোয়েন্দা রিপোর্ট সাত খণ্ডে বেরিয়েছে, বাকিটাও বের হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে।সে উন্নয়নশীল থেকে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ করবো, এটাই আমাদের প্রতিজ্ঞা।আজকের বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার কমে ২০ ভাগে নেমেছে, মাথাপিছু আয় ২২২৭ ডলারে এসে দাঁড়িয়েছে, রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়নে উন্নীত হয়েছে।

স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করেন, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান।সঞ্চালনায় সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি।সভায় অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির।

দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল আমিন রুহুল, উত্তর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কাদের খান, দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কাজী মোর্শেদ কামাল, উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক আখতার হোসেন, উত্তরের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক রানা।

IPCS News Report : Dhaka: