মঙ্গলবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

চাঁপাঃনবাবগঞ্জের পদ্মা ও মহানন্দায় পানি বৃদ্ধি, পানিবন্দি ২২ হাজার পরিবার, তলিয়ে গেছে ২’শ একর জমির ফসল

আপডেটঃ ২:২৫ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২১, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহী ব্যূরো : উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে চাঁপাইনাবগঞ্জের পদ্মা ও মহানন্দায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায়, সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।এতে করে, ২২হাজার পরিবার পানিবন্দি ও ১শ ৮৯ হেক্টর জমির ধান ও শাকসব্জি পানিতে ডুবে গেছে।পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দশমিক পদ্মায় ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার দশমিক ২২সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে (বিপদসীমা ২২.৫০ সেমি) এবং মহানন্দায় গত ২৪ঘণ্টায় দশমিক ১০সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার দশমিক ৩৫ সেন্টিমিটার (বিপদসীমার ২১সেমি) নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।জেলার ক্ষতিগ্রস্থ স্ব স্ব ইউপির চেয়ারম্যান জানান, উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়নপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের আংশিক নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে,তবে বাকি ১ থেকে ৮নং ওয়ার্ডের পুরো গ্রাম প্লাবিত হওয়ায় প্রায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

এসব অঞ্চলের ফসলি জমি তলিয়ে গেছে।পাশাপাশি গবাদী পশুগুলো গো-খাদ্য সঙ্কটে পড়েছে।এছাড়া অনুপনগর ইউনিয়নের ১,২,৩ ও ৬নং ওয়ার্ডের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় প্রায় ১হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান সেরাজুল ইসলাম।এদিকে আলাতুলি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় মধ্যচরে বসবাসকৃত প্রতিটি ঘরে পানি ঢুকে পড়ায় ৬শ ৭৫ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল হাসান কামাল।এসব পরিবারের সহযোগিতার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানান সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহান।

অন্যদিকে, শিবগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, শিবগঞ্জের মনাকষা, দূর্লভপুর, পাঁকা, উজিরপুর, ছত্রাজিতপুর ও ঘোড়াপাখিয়া ইউনিয়নের ১৭টি ওয়ার্ড নিম্লাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ১৭ হাজার ৭’শ পরিবার।ইতোমধ্যে ১হাজার পরিবারের মাঝে সহায়তার জন্য চাল,শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।পর্যায়ক্রমে বাকি পরিবারগুলোকে সহায়তা প্রদান করা হবে।এদিকে, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরের উপ-পরিচালক নজরুল ইসলাম জানান, সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও শিবগঞ্জ ৬টি ইউনিয়নের প্রায় ১’শ ৮৯ হেক্টর জমির আউশ ধান, হলুদ, আমন ধানসহ অন্যান্য শাকসব্জি পানিতে তলিয়ে গেছে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁপাইনবাবগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান জানান, পদ্মা ও মহানন্দায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত এবং চরবাগডাঙ্গার গোয়ালডুবি অংশে ভাঙ্গন রোধে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলে তার রোধ করার চেষ্টা চলছে।২৪ ঘণ্টায় পদ্মায় ও মহানন্দায় পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ১০ সেন্টিমিটার।বর্তমানে পদ্মায় ২২.২৮ সেন্টিমিটার ও মহানন্দায় ২০.৬৫ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহিত হচ্ছে।আশা করা যায় আগামী কয়েকদিনের মধ্যে পানি কমতে পারে।তবে, পানি কমার সাথে সাথে আবার নদী ভাঙন দেখা দিতে পারে।

IPCS News Report : Dhaka:আবুল কালাম আজাদ: রাজশাহী।