শনিবার ২০শে জুলাই, ২০১৯ ইং ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

ওজন কমানোর শর্টকাট টিপস বা নিয়ম

আপডেটঃ ২:৩৩ অপরাহ্ণ | মে ০৪, ২০১৯

স্বাস্থ্য টিপস

প্রথমেই ওজন কমানোর জন্য মনস্থির করতে হবে। একটি নির্দিষ্ট দিন থেকে শুরু করার জন্য মনস্থির করুন। যেদিন থেকে শুরু করবেন সেদিনের ওজন নোট করে রাখুন।

✮ পর্যাপ্ত পরিমানে পানি খান কারন পর্যাপ্ত পানি আপনার শরীরের সকল অংশের কাজকে সুষ্টুভাবে পরিচালনা করার জন্য খুবই দরকারি ।
ইংরেজীতে বলা হয়, 
“the more you drink, the better your chances of staying thin”

✮ ছোট প্লেটে খাবার খান। এতে বেশি খাওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে
✮ আমিষ (প্রোটিন) সমৃদ্ধ খাবার যেমন-মাছ, ডাল ইত্যাদি প্রচুর পরিমাণে খান। প্রটিন শরীরের মেটাবলিজম বাড়ায় ও চর্বি পোড়ায়।
✮ খালি পেটে সকালে এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে এক চা চামচ মধুও এক পিস লেবু দিয়ে খেয়ে নিন।

✮ প্রতিবেলা খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করবেন।
✮ আঁশ বহুল খাবার বেশি করে খাবেন।
✮ মাংস বা নদীর মাছের পরিবর্তে সামুদ্রিক মাছ বেছে নিন।
✮ প্রতিবেলা খাওয়ার পর এক কাপ চা(দুধ, চিনি ছাড়া) পান করুন।
✮ জুসের পরিবর্তে বেশি করে মৌসুমি টকজাতীয় ফল খাবেন।
✮ রাত ৮টার পর খাবার না খাওয়াই উচিত।
✮ রাতে ঘুমের আগে এক গ্লাস পানিতে দুই চা চামচ ইসবগুলের ভুসি দিয়েই খেয়ে নিন।
✮ নিয়মিত ব্যায়াম করুন ,

দাওয়াত কিংবা ভূরিভোজে …দাওয়াত এড়াতে না পারলে আমরা যা করব তা হল-
✮ খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করব।
✮ খাবারে পর্যাপ্ত সালাদ যোগ করব।
✮ মাংসের চর্বি যতটা সম্ভব বাদ দিয়ে খাব।
✮ ঘরে ফিরেই এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে অর্ধেক লেবুর রস দিয়ে পান করব।
✮ ঠাণ্ডা পানি বা কোনো রকম সফট ড্রিংকস পান করব না।
✮ দুপুর বা রাতে যে বেলাতে দাওয়াত খাব, সেদিন অন্য বেলায় খুব সামান্য খাবার খাব।
✮ বাইরের খাবার না খেয়ে বাসার খাবারে অভ্যস্ত হোন। এতে আপনার খাদ্যে প্রয়োজন অনুযায়ী চর্বি, চিনি এবং লবণ পাবেন 
✮ প্রচুর সালাদ খাবেন, সালাদের সাথে ভিনেগার মিশিয়ে নেবেন
✮ ফল ও সবজি বেশি খান তাতে আপনা আপনি চর্বি ও শকর্রা যুক্ত খাবার কম খাওয়া হবে

স্বাভাবিক উপায়ে ওজন কমানো শর্ট ডায়েট টিপস
ওজন কমানোর সবচেয়ে ভালো প্রাকৃতিক উপায় হলো এমন ডায়েট মেনে চলুন যাতে বেশি পরিমাণে কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট এবং ফাইবার আছে, মাঝারি পরিমাণে প্রোটিন আছে এবং কম পরিমাণে ফ্যাট আছে। যারা অফিসে যান তারা ব্রেকফাস্টটা খেয়ে দুপুরের খাবার অফিসে যাওয়ার সময় লাঞ্চ হিসেবে নিয়ে যান।

শর্ট ডায়েট টিপস
1) আলু, কুমড়ো, কাঁচা কলা খাবেন না
2) ছাঁকা তেলে ভাজা কিছু খাবেন না; তা সে বেগুন হোক বা পটল ভাজা হোক
3) অ্যালকোহল, এনার্জি ড্রিংকস, হেলথ ড্রিংকস, সফট ড্রিংকস খাবেন না
4) চিনি একেবারেই খাবেন না, প্রয়োজনে সুইটনার চলতে পারে
5) গরু, খাসির মাংস ও চিংড়ি মাছ মোটেই খাবেন না
6) আপনার পছন্দ-অপছন্দের খাবার, বর্তমান খাদ্যাভ্যাস ও বাজেটের ওপর ভিত্তি করে ডায়েট চার্ট তৈরি করুন
7) কোন ধরনের কাজের সঙ্গে আপনি যুক্ত তার ওপর নির্ভর করবে আপনার পারফেক্ট ডায়েট
8) আপনার ডায়েটে যাতে ফাইবার, ভিটামিন, মিনারেল এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যথেষ্ট পরিমাণে থাকে সেদিকে লক্ষ রাখুন
9) প্রতিদিনের ডায়েটে হোলমিল এবং বিভিন্ন ধরনের দানাশস্য রাখুন, কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট, যেমন-হোলহুইট ব্রেড, রাইস, ওটস মিল, হোল মিল পাস্তা, বার্লি, ব্রাউন রাইস খান প্রয়োজনমতো
10) ওবেসিটি কমিয়ে সুস্থ থাকার জন্য প্রতিদিন যথেষ্ট পরিমাণে ফল ও শাকসবজি খান
অসময়ে খিদে পেলে করণীয়
অসময়ে খিদে পেলে হেলদি স্ন্যাক্স খান। লাঞ্চ এবং ডিনারের মাঝে ৩-৪ ঘণ্টা পর পর হেলদি স্ন্যাক্স খেতে পারেন। খুব খিদে পেলে শুকনো রুটি বা টোস্ট বিস্কুট খান। ফলও খেতে পারেন। লাউ বা অন্য সবজির রস বা সিদ্ধ শাক সবজি খেতে পারেন। বেশি রাতে কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার কম খাবেন।

ওজন কমানোর বিশেষ ডায়েট চার্ট
প্রতিদিন তিনবার খাবার খান
প্রতিদিন তিন বেলা খাওয়ার অভ্যাস করুন। সকালের নাশতা, দুপুর ও রাতের খাবার। কোনো বেলা খাবার বাদ দেওয়া ঠিক নয়। কারণ, এতে আপনি এমন ক্ষুধার্ত হবেন যে পরবর্তী খাওয়ার সময় অতিরিক্ত খাবার খেয়ে ফেলবেন। এ ছাড়া দুবার খাবারের মধ্যে সময়ের পার্থক্য বেড়ে গেলে শরীরের বিপাকীয় প্রক্রিয়া কমে আসে।
তাই নিয়মিত খাবার গ্রহণ করুন।
কতটুকু চর্বি আমাদের খাওয়া উচিত
খাবারের চর্বি কমানোর অনেক পদ্ধতি আছে। অধিকাংশ খাদ্য সংস্থা প্রতিদিনের খাবারে ৩০ শতাংশের বেশি চর্বি অনুমোদন করে না।

Ipcs News/ রির্পোট