সোমবার ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পরীমনিকে বিলাসবহুল সাড়ে ৩ কোটি টাকার গাড়ি দিল কে?

আপডেটঃ ৪:১৯ অপরাহ্ণ | আগস্ট ০৯, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জিজ্ঞাসাবাদে চিত্রনায়িকা পরীমণির বিষয়ে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য বের হয়ে আসছে।সিনেমায় অভিনয়ের আড়ালে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হওয়া,মাদক গ্রহণসহ বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।সম্প্রতি গণমাধ্যমে এমন একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার চিত্রনায়িকা পরীমনিকে বিলাসবহুল গাড়ি উপহার দিয়েছেন সিটি ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাসরুর আরেফিন।তবে মাসরুর এ সংবাদকে মিথ্যাচার বলে দাবি করছেন।তিনি দাবি করেছেন,গাড়ি উপহার দেওয়া তো দূরের কথা পরীমনির সঙ্গে কখনো দেখাই হয়নি।পত্র-পত্রিকার মাধ্যমে গত জুনে ‘উত্তরা বোট ক্লাব’ ঘটনায় পরীমনি নামটা শুনেছেন মাত্র।আমার কাজ সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যাংকিং আর তারপর সাহিত্য নিয়ে পড়ে থাকা।

যারা ক্লাবে যান তাদের কেউ বলতে পারবেন না তারা আমাকে কোনোদিন কোনো ক্লাব বা পার্টিতে দেখেছেন (এখানে আমি ক্লাব বা পার্টিতে যাওয়ার নিন্দা করছি না,সেটা যারা যাবার তারা যেতেই পারেন,আমি শুধু বোঝাচ্ছি যে মানুষ হিসাবে আমার টাইপটা কী।এতটাই অফিস ও ঘরমুখী এক মানুষ আমি।অতএব বলছি, পরীমনিকে গাড়ি দেওয়ার কথাটা আমার কানে লাগছে মঙ্গল গ্রহের ভাষায় বলা কিছুর কথার মতো।

আমার নিজের একটাও গাড়ি নেই।ব্যাংক আমাকে চলার জন্য গাড়ি বরাদ্দ দিয়েছে,তাতেই চড়ি।ব্যাংকের চাকরির শেষে নিশ্চয় কোনো ব্যাংক থেকে কার লোন নিয়ে একটা গাড়ি কিনে তাতে চড়ব।২০২০ সালের ২৪ জুন পরীমনির সাদা রঙের হ্যারিয়ার গাড়িটি দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়।এর ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই তিনি প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার রয়েল ব্লু রঙের মাসেরাতি গাড়িটি কেনেন।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) বনানী থানায় মাদক আইনে মামলা করা হয় পরীর বিরুদ্ধে।ওইদিনই সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয় পরীমনিকে।তার চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে মাদকে আসক্ত হওয়ার কথা স্বীকার করেছেন পরীমনি। জানিয়েছেন, ২০১৬ সাল থেকে অ্যালকোহলে আসক্ত তিনি।

নিজের চাহিদা মেটানোর জন্য নিজের ফ্ল্যাটে মিনি বার স্থাপন করেছেন।পরীর বারে বিদেশি মদ থাকত।সেগুলো সরবরাহ করত নজরুল রাজ।এর আগে বুধবার (৪ আগস্ট) বনানীর বাসা থেকে আটক করা হয় পরীমনিকে।র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমাণ মাদক পাওয়া যায় তার বাসায়।

এরপর থেকে বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।শোনা যায়, পুলিশ কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, আমলা, রাজনীতিবিদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতেন পরীমনি।বিশেষ লোকদের ডাকে শুটিং সেট থেকেও চলে গিয়েছিলেন এ নায়িকা।দেশের বাইরে ঘুরতে যেতেন তাদের আশীর্বাদ নিয়ে।

IPCS News/রির্পোট।dhaka ।