বুধবার ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

আরও ৭ দিন বিধি-নিষেধ বাড়তে পারে, চূড়ান্ত কাল

আপডেটঃ ৬:৫০ অপরাহ্ণ | আগস্ট ০২, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

চলমান ‘লকডাউন’ আগের শর্তাবলির সঙ্গে কিছু নতুন শর্ত যুক্ত করে আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর চিন্তা করছে সরকার।সীমান্তবর্তী জেলার মানুষের চলাচলে কঠোর বিধিনিষেধ থাকতে পারে নতুন শর্তে।৩০মে রোববার চলমান বিধি নিষেধের শেষ দিন,মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে নতুন শর্ত যুক্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হতে পারে বলে সূত্রে জানা গেছে।শনিবার (২৯মে) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন,সীমান্তবর্তী জেলায় ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট সরকারকে ভাবিয়ে তুলেছে।এজন্য সীমান্তবর্তী জেলার মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হতে পারে।স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্তঃজেলাসহ সব ধরনের গণপরিবহন আসন সংখ্যার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের সুযোগ রেখে ৩০মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানো হয়।এছাড়াও হোটেল-রেস্তোরাঁ ও খাবার দোকানসমূহে আসন সংখ্যার অর্ধেক সেবাগ্রহীতাকে সেবা প্রদানের সুযোগ রাখা হয়।

করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ৫ এপ্রিল থেকে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত ঢিলেঢালা লকডাউন ঘোষণা করা হয়।সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ায় ১৪ এপ্রিল থেকে ‘কঠোর লকডাউন’ঘোষণা করে সরকার।পরে সিটি করপোরেশন এলাকায় গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়।তবে দূর পাল্লার বাস, লঞ্চ এবং ট্রেন চলাচল ঈদ পর্যন্ত বন্ধ ছিল।২৪ মে থেকে গণপরিবহন চলার অনুমতি দেওয়া হয়।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শুরু হলে ১৮ মার্চ থেকে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়।অফিস বন্ধ থাকে ২৬ মার্চ থেকে টানা ৬৬ দিন।শনিবার এক অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানিয়েছেন,ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে না।সংক্রমণ ৫ শতাংশের নিচে নামলে বিশেষজ্ঞরা শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান খোলার পরামর্শ দিয়েছেন, তবে সংক্রমণ এখন ১৩ শতাংশ।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে চলমান লকডাউন আরো ১০দিন বাড়ানোর সুপারিশ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।গত ৩০ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশীদ আলম বলেন,আমরা আরও ১০দিন বিধি-নিষেধ বাড়ানোর সুপারিশ করেছি।তিনি জানান, যেভাবে সংক্রমণ বাড়ছে,যদি এভাবে বাড়তে থাকে তাহলে কি পরিস্থিতি সামাল দেওয়া সম্ভব ? অবস্থা খুবই খারাপ হবে এতে কোনো সন্দেহ নেই।

এসব বিবেচনাতেই আমরা বিধি-নিষেধ বাড়ানোর সুপারিশ করেছি।স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সুপারিশের বিষয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন গত ৩১ জুলাই জানান, সেটি অবশ্যই আমাদের মাথায় আছে।কারণ সবকিছুর সমন্বয় আমাদের করতে হবে।সেজন্য আমরা বলছি যে,একটু সময় নেব।৩ বা ৪ আগস্ট এ বিষয়টি পরিষ্কার করে দেব।জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন,পরিস্থিতি বিবেচনা করে সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে বিভিন্ন প্রস্তাব আছে,সেগুলো বিবেচনা করে কীভাবে করলে এ সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারি,সেটি আমাদের মূললক্ষ্য।

 IPCS News/রির্পোট।dhaka