শনিবার ২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

রাজশাহীতে পৃথক দুটি স্থানে দুজনকে কুপিয়ে হত্যা

আপডেটঃ ৬:১৮ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৪, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহী প্রতিনিধি:রাজশাহীর পৃথক দুই স্থানে একজন কৃষক ও একজন নারীকে ধর্ষণের পর কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তর।রাজশাহীর পুঠিয়ায় আতিকা বেগম (৪৫) নামের এক বিধবা নারীর ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করেছেন পুলিশ।প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন,বিলে ছাগল চড়াতে গিয়ে ওই নারীকে দুর্বৃত্তরা ধর্ষণের পর তার হাতের রগ ও গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়েছে।নিহত আতিকা বেগম উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের ধোপাপাড়া-কারিগরপাড়া গ্রামের মৃত আতাহার আলীর স্ত্রী।পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালের মগে পাঠিয়েছে।এ এই ঘটনায় সন্দেহভাজন ৪ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য  পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে।মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) সন্ধার আগে বাড়ির অদুরে ছাগল চড়াতে গিয়ে তিনি হত্যাকাণ্ডের শিকার হন।খবর পেয়ে রাত ১০ টার দিকে পাটখেতে তার লাশ উদ্ধার করেন পুলিশ।

ইউপি সদস্য শামিম হোসেন বলেন, রাতে খবর পেয়ে ঘটনান্থলে গিয়ে ওই নারীর ক্ষতবিক্ষত লাশ পড়ে দেখতে পান।তারা ধারণা করছেন‌ পূর্বপরিকল্পিত এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা। প্রথমে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। এরপর তার হাতের রগ ও জবাই করা হয়েছে।নিহতের মাথায় আঘাতের দাগ রয়েছে।থানায় খবর দিলে রাতেই লাশ নিয়ে যায় পুলিশ। তবে ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পুলিশ রাতেই সন্দেহভাজন চারজনকে থানায় নিয়ে গেছে।অপরদিকে পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তা, ডিবি ও র্যাব সদস্যরা রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল থেকে ওই নারীর লাশ উদ্ধার করেছেন।

১৪ জুলাই বুধবার সকালে লাশের ময়নাতদন্তে জন্য রামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে দুর্বৃত্তরা ওই নারীকে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যা করেছে।তবে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন ছাড়া চুড়ান্ত কিছুই বলা যাচ্ছে না।এবিষয়ে থানায় একটি হত্যা মামলার হয়েছে।আর চারজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে।অপর দিকে,রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দুইপক্ষের সংঘর্ষে তসলিম উদ্দিন (৫০) নামে একজন কৃষক নিহত হয়েছেন।প্রতিপক্ষরা তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করেছে বলেে,জানান স্থানীয়রা।বুধবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার মাটিকাটা ইউনিয়নের সোনাদীঘি আদাড়পাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।নিহত তসলিম এই গ্রামের বেলাল উদ্দিনের ছেলে।

গোদাগাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, প্রতিবেশী আবদুল কাদের মিনুর সঙ্গে জমি নিয়ে তসলিম উদ্দিনের দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলছিল।বুধবার (১৪ জুলাই) দুপুরে প্রতিপক্ষরা তসলিমকে একা পেয়ে অতর্কিতভাবে হামলা করে।এসময় দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে,তসলিম গুরুতর আহত হয়।এরপর স্বজনরা তাঁকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।ওসি জানান, দুষ্কৃতকারীদের আটকের চেষ্টা চলছে।আর নিহত তসলিমের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।এ নিয়ে থানায় হত্যা থানায় মামলা হয়েছ বলেও জানান ওসি।

 IPCS News/রির্পোট।Abul Kalam রাজশাহী