বুধবার ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভুয়া সনদে ১৭বছর ধরে রাজশাহী গণপূর্ত অধিদপ্তরে কর্মরত উপ সহকারী প্রকৌশলী

আপডেটঃ ৮:০৮ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ৩১, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

সার্টিফিকেট জালিয়াতি করে রাজশাহী গণপূর্ত অধিদপ্তরের একজন উপ সহকারী প্রকৌশলী পদে কর্মরত রয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।ওই কর্মকর্তার নাম মো: আয়াতুল্লাহ।গত রবিবার (২৪ জানুয়ারি) মেসার্স কামাল এন্ড কোং নামে একটি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী বরাবর দেয়া এক লিখিত অভিযোগে বিষয়টি জানা গেছে।এ ছাড়াও একই অভিযোগের অনুলিপি মাননীয় মন্ত্রী, (মন্ত্রীর একান্ত সচিব) গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, সচিব গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, চেয়াম্যান পাবলিক সার্ভিস কমিশন ঢাকা, চেয়াম্যান দুর্নীতি দমন কমিশন ঢাকা, অতিঃ প্রধান প্রকৌশলী (সংস্থাপন) গণপূর্ত অধিদপ্তর, অতিঃ প্রধান প্রকৌশলী গণপূর্ত জোন রাজশাহী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (সংস্থাপন) গণপূর্ত অধিদপ্তর, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী গণপূর্ত সার্কেল রাজশাহী, পরিচালক দুর্নীতি দমন কমিশন রাজশাহীর বরাবর দাখিল করেছেন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী গণপূর্ত অধিদপ্তরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. আয়াতুল্লাহ ২০০৪ সাল থেকে অদ্যবধী গণপূর্ত বিভাগ-২এ কর্মরত রয়েছেন।তার বাড়ি জেলার গোদাগাড়ী উপজেলায়।অভিযোগে আরও জানা যায়, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশন ২০০৩ইং সালের ৩০ জানুয়ারি দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় ১৯নং পাতায় প্রকাশিত লোকবল নিয়োগ সার্কুলার জারিতে শিক্ষাগত যোগ্যতা উল্লেখ ছিলো কোন র্স্বীকৃতি প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান হতে ডিল্পোমা ইনর-ইলেকট্রিক্যাল/মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাস হতে এবং একই শিক্ষাগত যোগ্যতায় ২০০৫ইং সালে লোকবল নিয়োগ সার্কুলার জারি করে, কিন্তু মো: আয়াতুল্লাহ ১৯৯৪-৯৫ইং সেশনে রাজশাহী পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউট- এর ট্রেড ডিল্পোমা-ইন- ইলেকট্রনিকস-এ ভর্তি হন, যার বোর্ড রেজিষ্টেশন নং- ২১১৩, বোর্ড রোল নং- ২০৬৭।

ডিল্পোমা-ইন- ইলেকট্রনিকস এ ১৯৯৭ইং সালে অনুষ্ঠিত ফাইনাল পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে এবং তার ফলাফল ২৯-০৪-১৯৯৮ইং তারিখ প্রকাশিত হয়। যাহার সার্টিফিকেট নং- ০৪৩৮২৮ এবং তিনি দ্বিতীয় শ্রেণীতে উর্ত্তীন হয়।প্রকাশথাকে যে, ইলেকট্রনিকস/ ইলেকট্রিক্যাল/মেকানিক্যাল/পাওয়ার/কম্পিউটার/সিভিল এগুলো আলাদা আলাদা ট্রেড এর সকল র্কোস ভিন্ন ভিন্ন ভাবে প্রদান করে থাকে।কি করে আলাদা ট্রেডের ছাত্র হয়ে এত গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ পায় তাহা বোধগম্য নয়।উনার স্থলে একজন ইলেকট্রিক্যাল/মেকানিক্যাল সার্টিফিকেট ধারী ছাত্র নিয়োগ পেলে দক্ষ প্রকৌশলী হতে পারতো।

অভিযোগ সূত্রে আরও জানা যায়, মো: আয়াতুল্লাহ এর গ্রামের বাড়ী রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলায় অবস্থিত, সে এবং তার পরিবারের সকলেই জামাত- বিএনপি রাজনীতির সাথে জড়িত।
তৎকালীন বিএনপি সরকারের আমলে হাওয়া ভবনের ইন্ধনে নিয়োগ পায়।জনাব মো: আয়াতুল্লাহ উপ-সহকারী প্রকৌশলী (ই/এম) গত বিএনপি সরকার বদল হওয়ার সাথে সাথে আওয়ামী লীগ এ যোগ দিয়ে সকলকে আওয়ামী লীগের একনিষ্ঠ কর্মী বলে পরিচয় দিচ্ছেন তিনি।বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত রাজশাহী গণপূর্ত অধিদপ্তরের উপ সহকারী প্রকৌশলী মো. আয়াতুল্লাহর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত এসকল অভিযোগ মিথ্য।অভিযোগকারীর নামে গণপূর্ত অধিদপ্তরের উপ-প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেনের ওপরে হামলা ঘটনায় মামলা করায় এমন অভিযোগ আনছে আমার বিরুদ্ধে।তার পরেও আমি আপনার সাথে সন্ধায় দেখা করছি বলে জানান তিনি।
গণপূর্ত জোন রাজশাহী অতিঃ প্রধান প্রকৌশলী খালেকুজ্জামান চৌধুরীর সাথে কথা বললে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে অফিসে এসে কথা বলার জন্য বলেন তিনি।

IPCS News/রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।