বুধবার ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

রাজশাহীর আড়ানী পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে আ.লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে রাতভর সশস্ত্র তান্ডব

আপডেটঃ ৪:১৬ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ১৪, ২০২১

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর নির্বাচনে আ.লীগের প্রার্থী ও আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে রাতভর দফায় দফায় সংঘর্ষ, গোলাগুলি ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।১৩ জানুয়ারি বুধবার দিবা রাত সাড়ে ১০ টায় আড়ানী পৌরবাজারের তালতলা এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় নৌকার প্রার্থী প্রার্থী শহীদুজ্জামান শাহিদের সমর্থক তুষার আহমেদ, সোহান আহমেদ, ইসলাম ও লাটু হোসেনসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী শহীদুজ্জামান শাহিদের পথসভা ছিল।এ সময় শাহীদ এর নির্বাচনী ক্যাম্পে হামলা চালায়।এরপর দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া গুলি ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।এসময়  তালতলা বাজারের প্রায় শতাধিক দোকান ভাংচুর ও লুটপাট, অগ্নিসংযোগের ঘটনা ছাড়াও প্রায় ৮ টি মটরসাইকেলও ভাংচুর করা হয়।

এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে উভয়পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে।তবে রাতের আধারে উভয়পক্ষ ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হলেও রাতভর চোরাগুপ্তা ভাবে হামলা চলে।রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর নির্বাচনে আ.লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন আড়ানী পৌর আ.লীগের সভাপতি শাহীদুজ্জামান শাহীদ।বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন বর্তমান মেয়র মুক্তার আলী।বিএনপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও সাবেক সভাপতি তোজাম্মেল হক।বিদ্রোহী প্রার্থী মুক্তারসহ ৬০০ জনের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মামলা, গ্রেপ্তার -১।

(১৪ জানুয়ারি) রাতের ঘটনায় বিদ্রোহী প্রার্থী মেয়র মুক্তার আলীকে প্রধান আসামি করে বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন- বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম।তিনি জানান- বুধবার (১৪ জানুয়ারি) রাতে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক মতিউর রহমান মতি বাদি হয়ে বাঘা থানায় বিস্ফোরক আইনে মামলাটি দায়ের করেন।এই মামলায় বিদ্রোহী প্রার্থী মেয়র মুক্তার আলী প্রধান আসামিসহ ৫০ জনের নাম উল্ল্যখ করে অজ্ঞত আরও অজ্ঞাত ৬০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।এই মামলায় আড়ানীর সাহাপুর এলাকার সাহাবাজ আলীর ছেলে মিলনকে (৩০) আটক করেছে পুলিশ।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।