রবিবার ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

চাকরি প্রার্থীদের আবেদন ফি ১০০ টাকা করার দাবি জাতীয় ছাত্র সমাজ-এর।

আপডেটঃ ৪:৪৪ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০২, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

আজ সকালে বিসিএস সহ সকল সরকারী চাকরি প্রার্থীদের আবেদন ফি অনধিক ১০০ টাকা করার দাবিতে জাতীয় ছাত্র সমাজ-এর সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।ঢাকা-বুধবার, ০২ ডিসেম্বর, ২০২০করোনা মহামারীর প্রভাবে অর্থনৈতিক বিপর্যয় , দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি ও বেকারত্বের ব্যাপক বৃদ্ধির কারণে জনজীবন যেখানে বিপর্যস্ত ঠিক তখনি আমরা দেখতে পাই গত ৩০ তারিখে প্রকাশিত ৪২ ও ৪৩ তম বিএসএসে আবেদন ফি নির্ধারিত হয়েছে ৭০০ (সাত শত) টাকা।এটা সত্যিই আমাদের জন্য অসহনীয় একটি বিষয়।সারা বিশ্বে কর্মসংস্থানহীন বেকারদের খারাপ অবস্থা বিবেচনা করে বেকার ভাতা প্রদান করা হয়।আমাদের দেশে ঠিক তার উল্টো, বেকারদের কাছ থেকে চাকরীর আবেদন ফি এর নামে রাজস্ব আয়ের অপচেষ্টা মাত্র নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি না করে এবং আগের শূণ্য পদ গুলোতে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করে নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।সংশ্লিষ্ট দফতর গুলোতে নিয়োগ প্রক্রিয়ার জন্য আলাদা বরাদ্দ/বাজেট রাখার জন্য জাতীয় ছাত্র সমাজ আহবান করছি ।সরকারী চাকরীতে সকল গ্রেডের চাকরী প্রার্থীদের আবেদন ফি অনধিক ১০০ (একশত) টাকা নির্ধারণ করা না হলে দেশের বৃহৎ বেকার জনগোষ্ঠিকে সাথে নিয়ে তীব্র আন্দোলন কর্মসূচি দেয়া হবে।বিশ্বের আর কোথাও কোনো দেশেই চাকরীতে আবেদনের অসহনীয় ফি নেয়া হয়না।

বরং উন্নত দেশগুলোতে বেকার ভাতা প্রদান করা হয়।যেসব চাকরিতে আবেদন ফি ৩০০ টাকা, সেখানে আবেদন, আবেদনপত্র পাঠানোসহ আনুষঙ্গিক কাজে কম করে হলেও ৫০০ টাকা খরচ হয়ে যায়।আর ৫০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট হলে সব মিলিয়ে লেগে যায় ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা।উক্ত সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ছাত্র সমাজ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি উপস্থিতিতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জাতীয় ছাত্র সমাজ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আল মামুন।সভাপতি ইব্রাহীম খাঁন জুয়েল বলেন- শিক্ষার্থীদের স্বপ্নের চাকরীর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ  নিয়ে চাকরীর ফি প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।লিখিত বক্তব্যে আল মামুন জানান করোনা পরিস্থিতিতে জনজীবন যেখানে বিপর্যস্ত ঠিক সেই মুহুর্তে বেকারদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে বিসিএস সহ সকল চাকুরীর আবেদন ফি অসহনীয় করায় আমরা মর্মাহত।

বিসিএস সহ সকল সরকারী চাকরীর আবেদন ফি অনধিক ১০০ (একশত) টাকা করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান।সকল চাকরীর পরীক্ষা বিভাগীয় পর্যায়ে সম্পন্ন করারও দাবি জানান।সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় ছাত্র সমাজ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সিনিঃ সহ-সভাপতি শাহ ইমরান রিপন, সহ-সভাপতি মারুফ ইসলাম তালুকদার প্রিন্স, শাহরিয়ার রাসেল, দফতর সম্পাদক রুহুল আমিন গাজী বিপ্লব,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আহ্বায়ক ফকির আল মামুন, সদস্য সচিব আবু সাঈদ লিওন, এনজিও বিষয়ক সম্পাদক ও ঢাকা মহানগর উত্তর সদস্য সচিব মোঃ মোস্তফা সুমন, কেন্দ্রীয় সদস্য সামিউল সোহাগ, ছাত্রনেতা আবুল হাসনাত প্রমুখ।

IPCS News /রির্পোট, শাকিল আহমেদ, নারায়নগঞ্জ।