রবিবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

শহরের কঠিন ও তরল বর্জ্যতে পদ্মা নদীর পানি দূষিত হচ্ছে ধ্বংস হচ্ছে জীববৈচিত্র

আপডেটঃ ৩:২৮ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২১, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহী শহরের কঠিন ও তরল দুই ধরনের বর্জ্যই মিশে প্রতিনিয়ত পদ্মা নদীর পানি দূষণ হচ্ছে।নদী গবেষকরা বলছেন, নদী দূষণ বাড়তে থাকলে বরেন্দ্র অঞ্চলের মানুষের জীবনধারণ কঠিন হয়ে পড়বে।শুধু যে বসবাসের অযোগ্য হবে তাই না, পদ্মা নদীর জীববৈচিত্র্যও ধ্বংস হয়ে যাবে।পদ্মা নদীর রাজশাহী শহর এলাকা সংলগ্ন  ঘুরে দেখা গেছে, সব এলাকার বাসাবাড়ি থেকে প্রতিদিনের গৃহস্থালি কাজে ব্যবহ্রত ময়লা ও আর্বজনা পদ্মা নদীতে ফেলা হচ্ছে।বিশেষ করে শহরের বুলনপুর, কেশবপুর, শ্রীরামপুর, কুমারপাড়া, সেখের চক, পঞ্চবটি, তালাইমারী ও শ্যামপুর এলাকা শহর রক্ষা বাঁধের পাশে নদীসংলগ্ন হওয়ায় বসবাড়ির গৃহস্থালি সব ময়লা-আর্বজনাই পদ্মা নদীতে ফেলা হয়।এছাড়া শহর রক্ষা বাঁধের বিভিন্নস্থানে বিশেষ করে পাঠানপাড়া, দরগাপাড়া, বড়কুঠি ও শ্রীরামপুরসহ শহর রক্ষা বাঁধের নানা স্থানে বিভিন্ন ধরনের রেঁস্তোরা গড়ে উঠায় সব ধরনের প্লাস্টিক ও পলিথিন সরাসরি পদ্মা নদীতে ফেলা হচ্ছে। এছাড়া শহরের পাঁচটি স্লুইচ গেটের মাধ্যমে শহরের তরল বর্জ্যও পদ্মা নদীতে পড়ে।পদ্মাপাড় এলাকায়বাসি জানায় সিটি করপোরেশনের ময়লা নেয়া ভ্যান কোনোদিন আসে সন্ধ্যার দিকে, কোনোদিন আসে রাত আটটার পর,আবার কোনদিন আসেনা।

আর আসলেও এসব এলাকার গলি রাস্তা গুলো সরু হওয়ায় ভ্যান ঢুকেনা তাই তারা তাদের বাসাবাড়ির সব ময়লা পদ্মানদীতে ফেলে।কেশবপুর পুলিশ লাইনের সামনের টি-বাঁধের ধারে পড়ে রয়েছে প্লাস্টিকের কাপ, বোতল ও পলিথিন।সেইসব বর্জ্য সব পদ্মা নদীতে পড়ে বলে জানালেন গোলাম রসুল নামের একজন প্রবীন  ব্যাক্তি।তিনি ১০ বছর ধরে বাঁধের ওপর পান বিড়ির দোকান করে আসছেন।তিনি আরো জানান, মাস ছয়েক ধরে সিটি করপোরেশনের লোকজন এই এলাকাটি আর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করছে না।আগে তবু পরিষ্কার করতো।এখন প্লাস্টিকের কাপ, বোতল ও পলিথিন ও কাগজের ঠোঙ্গা সব পদ্মা নদীতেই ফেলা হয়।পদ্মা নদী সংলগ্ন বড়কুঠি, পাঠানপাড়া, দরগাড়া, শ্রীরামপুর, তালাইমারী এলাকায় রেস্তোরাঁ গড়ে ওঠায় দেখা গেছে সেখানকার সব বর্জ্যই পদ্মা নদীতে ফেলা হয়।

ভারতের গঙ্গা নদীই বাংলাদেশে পদ্মা নদী নামে পরিচিত হলেও বাংলাদেশের গোয়ালন্দ পর্যন্ত গঙ্গার অন্তর্ভুক্ত।ভারতের উত্তরপ্রদেশ পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ড (ইউপিপিসিবি) গবেশণায় বলছে, ভারতের মধ্যে গঙ্গা নদী দৃষণের মধ্যে দ্বিতীয় নাম্বারে রয়েছে।আর যমুনা নদী রয়েছে দূষণের পশ্চম নাম্বারে।গঙ্গা নদীর ধারে সহস্রাধিক শহর, শিল্প কারখানা, দর্শনার্থী ও তীর্থ স্থান অবস্থিত।তাদের বর্জ্য প্রতিনিয়ত পদ্মা নদীকে দূষণ করছে।তবে ভারতের হিন্দু বেনারস ইউনিভার্সিটির মহামানা মালিভিয়া রিসার্চ সেন্টার ফর গঙ্গার চেয়ারপার্সন প্রফেসর ত্রিপাঠী বলেছেন, এই কোভিডের কারণে গঙ্গা দূষণ ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ কমেছে।এর মধ্যে দ্রবীভূত অক্সিজেনের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে ৮.৩ থেকে ১০ শতাংশ, বায়োলজিক্যাল অক্সিজেন ডিমান্ড হ্রাস পেয়েছে ৩.৮ থেকে ২.৮ শতাংশ, ব্যাক্টোরিয়াল অণুজীবের পরিমাণ প্রতি ১০০ মিলিমিটারে কমেছে ২২০০ থেকে ১৪০০ মিলিমিটার।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. চৌধুরী সারওয়ার জাহান জানান, শহরের মধ্যে থেকে স্লুইচ গেটের মাধ্যমে যে তরল বর্জ্য পদ্মা নদীতে পড়ে তার মধ্যে দরগাপাড়া এলাকায় তরল বর্জ্যের মধ্যে ক্ষতিকর উপাদান বেশি পাওয়া গেছে।এসব বর্জ্যের ফলে পদ্মা নদীর পানি দূষণ বাড়ছে।এর ফলে পদ্মায় জলজ জীবৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়বে।কারণ ইতিমধ্যে দেখা গেছে শহরের তরল বর্জ্য বারনই নদীতে পড়ে সেখান জলজ জীববৈচিত্র্য নষ্ট হয়ে গেছে।মাছসহ জলজ প্রাণীর পরিমাণ বহুলাংশে কমে গেছে।রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, আমি কয়েকবছর আগে পদ্মা নদীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্লুইচ গেটের মাধ্যমে সিটি করপোরেশনের যে তরল বর্জ্য যাচ্ছে তা গবেষণা করে দেখেছি তাতে দূষণের মাত্রা ব্যাপক। আর এটা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে।

সেভ দ্য ন্যাচার অ্যান্ড লাইফের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বলেন, পদ্মা নদীর জন্য সবচেয়ে মারাত্মক হচ্ছে প্লাস্টিক বর্জ্য ও পলিথিনের ব্যাগ।এসব নদীর পানির দূষণ বাড়াচ্ছে।পদ্মা নদীর জীবৈচিত্র্য কমিয়ে দিচ্ছে।আমরা পলিথিনের ব্যবহার কমানোর আন্দোলন করেও কোনো লাভ হচ্ছে না।এছাড়া পানিতে প্লাস্টিক, পলিথিনের বর্জ্য ফেলার কারণেও ব্যাপক মাত্রায় দূষণ হচ্ছে।জীববৈচিত্র্য অনেক কমে গেছে।আগে যেমন পদ্মা নদীতে শুশুক দেখা গেলেও এখন আর দেখা যায় না।মাছের পরিমাণও বহুলাংশে কমে গেছে।এছাড়া পদ্মা নদীর পানি কৃষিকাজে ব্যবহারের জন্য স্বাস্থ্যঝুঁকিও বাড়াচ্ছে।কারণ গবেষণা দেখা গেছে, পদ্মা নদীর পানি কৃষি কাজে ব্যবহারের ফলে কৃষি জমিতে ধাতব পদার্থের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

এইজন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও কলকারখানার দূষক পরিশোধনকারী প্ল্যান্ট থাকা উচিত যা রাজশাহীতে নেই।তবে শুধু রাজশাহী একাই যে পদ্মা নদীকে দূষণ করছে বিষয়টা এমন না।পদ্মা নদীর উৎপত্তিস্থল হিমালয় থেকে শুরু করে পদ্মা নদীর দুই ধারে অসংখ্য শহর রয়েছে তারাও পদ্মা নদীকে ব্যাপক মাত্রায় দূষণ করছে।রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আসিফ আহমেদ জানান, পাঁচটি স্লুইচ গেটের মাধ্যমে সিটি কর্পোরেশনের তরল বর্জ্য পদ্মা নদীতে পড়ে।

তবে বর্ষাকালে পদ্মা নদীর পানি বেড়ে গেলে তখন গেট বন্ধ থাকে যাতে পদ্মার পানি শহরে প্রবেশ না করে।রাজশাহী সিটি করপোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন বলেন, সিটি করপোরেশনের তীর সংলগ্ন এলাকায় ভ্যান যাওয়ার কথা।এখন ওয়ার্ড কাউন্সিলদের সাথে কথা বলা জানতে হবে যে, ভ্যান সেসব এলাকায় যায় কিনা।না গেলে সব এলাকার আবর্জনা তুলে আনা হবে।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।