শনিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফেসবুক টেট্যার্স দিয়ে মসজিদে সুন্নাতী বিয়ে করলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী!

আপডেটঃ ১:২৮ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৯, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ফেসবুকে টেট্যার্স দিয়ে সামাজিক  প্রথা ভেঙে পুরোপুরি যৌতুকমুক্ত সুন্নাতী ও অনারম্বরভাবে বিয়ে সম্পন্ন করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী এসএম আব্দুল্লাহ ফাহাদ জাকির।জানা যায়,একই ইউনিয়নের বাসিন্দা ব্যবসায়ী জনাব নুরুল ইসলাম সাহেবের কন্যা হোসনেয়ারা খাতুন এর সাথে মাত্র ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দেনমোহর নির্ধারণ করে বিয়েটা সম্পন্ন হয়।ছিল না কোন গায়ে হলুদ,মেহেদী পড়া,যৌতুক,উপহার ও গানবাজনা।এ যেন এক ভিন্ন রকম বিয়ে।যেটা ইসলামি শরীয়াসম্মত।তিনি ফেসবুক পোস্টে বলেন,ইসলামে বিয়েকে পবিত্রতার মাধ্যম বিবেচনা করে সফলতার কষ্টিপাথর হিসেবে গণ্য করা হয়েছে।অথচ সমাজ সেটাকে লজ্জা ও বোঝার বিষয়ে পরিণত করে কঠিন করে ফেলেছে! নানান অনিয়ম, অসংগতি ও কুসংস্কারে আচ্ছন্ন করে প্রতিযোগিতায় নেমে গরিবের বিয়েকে কঠিন করেছে।মোটা অংকের দেনমোহর নির্ধারণ তো আছেই,চলছে বহু ছদ্মনামে যৌতুকের মহড়া! এ থেকে পরিত্রাণ পেতে ও সুন্নাহ মোতাবেক বিয়ে করতে দায়িত্ব নিতে হবে আমাদের মত তরুণদের।দায়িত্বটা আমারো কম নয়।নিজে করে অন্তত দেখিয়ে দিতে চাই এভাবে সবার বিয়ে করা উচিত! তারই ধারাবাহিকতায়  ২৮ শে আগস্ট কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি উপজেলার  লোহাজুরী ইউনিয়নের চরকাউনিয়া মধ্য বাজার জামে মসজিদে বিয়ে করেন তিনি।সুন্নাতী বিয়েতে সবার আমন্ত্রণ ছিলো।

তিনি বলেন, হয়ত আলাদা করে দাওয়াত দেয়া ও জানানো আমার পক্ষে কঠিন, মনঃ ক্ষুন্ন না হয়ে, একজন মুসলিম ভাই ভালো কাজটি করতে পারছেন,তাতে খুশি হয়ে ইতিবাচক হিসেবে নিবেন।সমাজের কথিত নিয়মের বিয়েতে দাওয়াত না দিতে পেরে দুঃখিত! তবে মসজিদে বিয়ে হচ্ছে বলে সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো সহজ হচ্ছে, মেয়ের বাড়িতে দাওয়াত চাপানো অসমীচীন! সাধ্য, সময়,সুযোগ হলে আমার বাসায় দাওয়াত করে খাওয়াব।আমি এখনো ছাত্র বলে সেটি আপাতত অসম্ভব বলে ক্ষমাপ্রার্থী! তিনি আরো বলেন,বর্তমানে তরুনদের বলতে চাই,সকলের যেনো আপনাদের  বিয়েটা সহজ ও সাধারণ হয় এবং বাড়াবাড়ি সহ কুসংস্কার ও অসংগতি দূর হয়।তিনি একটি ক্লাবও পরিচালনা করছেন,তার আশা সকলের জন্য সুন্নাহভিত্তিক বিয়ে বাস্তবায়ন হবে ইনশাআল্লাহ।

IPCS News /রির্পোট, মোঃ জাকির হোসেন।