শনিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা রোগীদের ঔষধ, শরীরের তাপমাত্রা মাপা ও সরাসরি চিকিৎসকের সাথে রোগীর ভিডিও ছবি ও বার্তা আদান-প্রদানের সেবা দিবে রোবট

আপডেটঃ ১:২১ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২০, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা সেবা  দিতে ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বিকল্প হিসেবে, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭জন সাবেক শিক্ষার্থী, ৩ মাস পরিশ্রম করে একটি রোবট তৈরী করেছেন।করোনা ভাইরাসের সংক্রমন থেকে ফ্রন্ট লাইন যোদ্ধাদের জীবন রক্ষায় রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ৭জন শিক্ষার্থী উদ্ভাবন করেছেন এই রোবট।নারী’র আদলে গড়ে তোলা এই রোবটটি’র নাম রাখা হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বীরপ্রতিক ডাক্তার সেতারা বেগমের নামে।এই রোবটির মাধ্যমে ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনায় আক্রান্ত রোগীদের ওয়ার্ডে না গিয়েই রোগীদের সেবা প্রদান করতে সক্ষম।

রোবটটির সম্প্রতি প্রাথমিক ট্রায়াল শেষে করোনা রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করার জন্য তাকে হাসপাতালে পাঠানো’র জন্য পরিকল্পনা করছেন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধান।রোবটটি তৈরীতে যাদের অবদান, তারা হচ্ছে রোবটটির প্রজেক্ট ব্যবস্থাপক ও সাবেক শিক্ষার্থী প্রকৌশলী শাহিদা আফরিন (কম্পিউটার  সায়েন্স এ্যান্ড ইন্জিনিয়ারিং বিভাগ), টিম লিডার সাবেক শিক্ষার্থী প্রকৌশলী কেএম ফারহাদুল ইসলাম(মেকানিক্যাল বিভাগ), টেকনিক্যাল টিম লিডার সাবেক শিক্ষার্থী প্রকৌশলী সাইয়াম বিন মেশকাত(মেকানিক্যাল বিভাগ) ও প্রকৌশলী সাকিব রহমান (মেকানিক্যাল বিভাগ)সহ ৭ জন শিক্ষার্থী।তাদের সার্বিক সহায়তা দিয়েছেন, রুয়েটের কম্পিউটার সায়েন্সে এ্যান্ড ইন্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান,অধ্যাপক ড,বশির আহম্মেদ।রোবটটির প্রজেক্ট ব্যবস্থাপক ও সাবেক শিক্ষার্থী প্রকৌশলী শাহিদা আফরিন জানান, গত মার্চ মাসে বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দেয়ার পর থেকে ফ্রন্ট লাইন যোদ্ধা ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জীবন রক্ষায়, তাদের বিকল্প হিসেবে একটি রোবট তৈরীর পরিকল্পনা করেন রুয়েটের সাবেক কয়েকজন শিক্ষার্থীকে নিয়ে।

দীর্ঘ ৩ মাসের কঠোর পরিশ্রমের ফলে গড়ে তোলা হয় এই রোবট। রোবটটি একই সঙ্গে করোনা আক্রান্ত রোগীকে ঔষধ, পথ্য দেওয়া, শরীরের তাপমাত্রা মাপা ও সরাসরি চিকিৎসকের সাথে রোগীর ভিডিও ছবি ও বার্তা আদান-প্রদানে সক্ষম।এ ছাড়া, ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে মোবাইল অ্যাপস এর সহযোগীতায় রোবটটিকে নিয়ন্ত্রন করা হচ্ছে।বর্তমানে রোবটটি’র ট্রায়াল পিরিয়ড সম্পন্ন হয়েছে।রোবটটিকে আরো আপডেট করতে আরেকটি রোবট তৈরীর কাজ চলছে।রুয়েটের কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, অধ্যাপক ড,বশির আহম্মেদ জানান,রুয়েটের সাবেক শিক্ষার্থীদের তৈরী করা রোবটটি দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে করোনা রোগীদের সেবায় ব্যবহার করলে ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের জীবন রক্ষা করা সম্ভব।ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল ইসলাম সেখ, বলেন,বীর প্রতিক ডাক্তার সেতারা বেগমের নামে নামকরণ করা এই রোবটটি হাসপাতালগুলোতে ব্যবহার করা হলে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে প্রধানমন্ত্রী’র স্বপ্ন পূরণে, বাংলাদেশ আরো এগিয়ে যাবে বলে মনে করছেন তিনি।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।