মঙ্গলবার ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চেইনের লোভে দেড় বছরের শিশুকে হত্যা করেছে চাচি

আপডেটঃ ৫:৫৫ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১৪, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহীর চারঘাটে, শিশুর গলার রুপার চেইন ও কোমরের বিছার জন্য, দেড় বছরের শিশুকে অপহরণ করে হত্যার অভিযেগে আপন চাচি ও তার সহযোগীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেছে চারঘাট থানা পুলিশ।শিশুটির পিতার নাম তারেক।গ্রেপ্তার কৃতরা হচ্ছে, জেলার চারঘাট থানার শিমুলিয়া গ্রামের আফজালের স্ত্রী পারভিন (৩৫) ও একই গ্রামের আঃ সাত্তারের ছেলে আমজাদ হোসেন।ঘাতক পারভিন বেগম, নিহত শিশু আলিফের আপন চাচি।১৩ আগস্ট রাজশাহী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী দিয়েছেন পারভিন বেগম।রাজশাহী জেলা পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর, ইফতেখায়ের আলম, আসামীর দেয়া আদালতের জবান বন্দীর উদ্ধৃতি দিয়ে পাঠানো ই-মেইল বার্তায়  জানা গেছে, আসামী পারভিন বেগম আদালতকে বলেন,গত ৭ আগস্ট সে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিবেশি মাদকাসক্ত আজাদের সাথে শিশু আলিফকে হত্যার পরিকল্পনা করে।পরদিন ৮ আগস্ট পরিকল্পনা মাফিক শিশুটিকে তার বাসা থেকে কোলে করে নিয়ে রাস্তার পাশে অপেক্ষা করা আজাদের কাছে তুলে দেয়।আজাদ শিশুটিকে পাশের বড়াল নদীতে নিয়ে গিয়ে গলার রৌপ্যের চেইন ও কোমরের বিছা খুলে নিয়ে তাকে নদীতে ফেলে দেন।

ফিরে এসে হার ও বিছা তার হাতে দিলে,সে তাকে ৩ শত টাকা দেন।৮ আগস্ট চারঘাট থানায়, নিহত শিশুর মা চম্পা বেগমের দায়ের করা অভিযোগে জানা গেছে, তার দেড় বছরের শিশু আলিফকে ৭আগস্ট থেকে পাওয়া যাচ্ছেনা।পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তার  সন্তানকে তার জা,পারভিন বেগম অপহরন করেছ।চারঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ কুন্ডু জানান, অভিযোগে ভিত্তিতে ঐ দিন সন্ধায় পারভিন বেগমকে আটক করেন।পরদিন ৯ আগস্ট আদালতে মাধ্যমে তাকে ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়ে আসেন। ঐদিন ৮ আগস্ট সন্ধায় বড়াল নদী থেকে শিশু আলিমের ভাসমান লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।লাশের গায়ে কোন আঘাতের চিণ্হ না থাকলেও তার গলায় ও কোমরে থাকা নিছা ছিলোনা।৩ দিনের জিজ্ঞাসা বাদে সেলিনা বেগম আলিকে হত্যার কথা স্বীকার করে।তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পারভীনকে নিয়ে অভিযান চালিয়ে তার বাড়ীর ভিতরের আঙ্গিনার লিচু গাছের নীচে, মাটিতে পোতা অবস্থায় শিশু আলিফের রুপার চেইন ও কোমরের বিছা উদ্ধার করে পুলিশ।সেই সাথে আজাদকেও গ্রেপ্তার করে।১৩ আগস্ট বিকালে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়ছে।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।