বুধবার ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

মেয়ে জামাই কতৃক বৃদ্ধা শাশুড়ীকে ধর্ষণ

আপডেটঃ ১২:৪০ অপরাহ্ণ | আগস্ট ০৮, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

বৃদ্ধা শাশুড়ীকে একাপেয়ে জোর করে ধর্ষণ করেছে আপন মেয়ে জামাই। ঘটনাটি ঘটেছে, নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার চকশব্দল গ্রামে।ধর্ষিতা (৭০) নিজেই বাদী হয়ে ধর্ষক জামাইয়ের বিরুদ্ধে  থানায় ধর্ষণ মামলা করেছেন।ঘটনার পরথেকে  সে পলাতক রয়েছে।এদিকে ধর্ষিতার ডাক্তারী পরিক্ষাও ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।ধর্ষক ফেরদৌস হোসেন জয়পুরহাট সদর থানার উত্তর জয়পুর (কুঠিবাড়ী ব্রীজ) এলাকার মৃত ছফের আলীর ছেলে।থানায় দায়ের কৃত মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৯ জুলাই বুধবার ধর্ষিতা বৃদ্ধা মেয়ে জামাই ফেরদৌস হোসেন (৫০) কে সঙ্গে নিয়ে উপজেলার উমার ইউনিয়নের’  চকশব্দল গ্রামের ঘুকসী খাড়ী এলাকা থেকে ঝাটা তৈরির  খেড় কাটতে যায়।মাঠের মধ্যে কেউ না থাকায়,ফেরদৌস হোসেন শাশুড়ীকে  জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।ধর্ষনে পর অজ্ঞান হয়ে পড়লে  তাকে  ভ্যান যোগে বাড়ীতে পৌছে দেয়েই জামাই ফেরদৌস পালিয়ে যায়।

পরদিন জ্ঞ্যান ফিরলে, শাশুড়ী  জামাইয়ের বিরিদ্ধে থানায়  ধর্ষনের অভিযোগ করেন।বিষয়টি নিশ্চিত করে, ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মো.আব্দুল মমিন বলেন,ধর্ষিতা বাদী হয়ে আপন জামাই ফেরদৌস হোসেনে কে আসামী করে থানায়  ধর্ষণের অভিযোগ করারপর ভিকটিমকে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য ধামরহাট হাসপাতালে পাঠানো হয়।ভিসেরা রিপোর্টে ধর্ষনের আলামত পাওয়ার পর থানায় ধর্ষন মামলা রেকোর্ড করা হয়।যার নং-০৫,তারিখ-০৪/০৮/২০২০ ইং।তিনি আরো জানান,ধর্ষক ফেরদৌস হোসেন ঘটনার দিন থেকে পলাতক আছে।তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা  চলছে।

উল্লেখ্য যে, ২০ বছর আগে ধর্ষিতা বৃদ্ধা তার মেয়ের সাথে ফেরদৌসের বিয়ে দেন।বিয়ের পর থেকে সে,শ্বাশুড়ির বাড়ীর পাশেই স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করতেন।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।