শনিবার ১৫ই আগস্ট, ২০২০ ইং ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

রেলের তেল চুরির ঘটনায় ইনস্পেক্টর হাবিবের আটক বাণিজ্য

আপডেটঃ ১২:৪৪ অপরাহ্ণ | জুলাই ৩০, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

পশ্চিম রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী (আরএনবি) রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশন চোকির ইনচার্জ ইন্সেপেক্টর হাবিবের বিরুদ্ধে আটক বানিজ্যসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ।সম্প্রিতিকালে রেলে তেল চুরি ঘটনা বেশি ঘটছে।এর ধারাবাহিকতায় বেশ কয়টি সফল অভিযান করেন আরএনবি রাজশাহী শাখা সহ পাকশি ডিভিশন।তবে এই অভিযানগুলোর ফাঁক ফোক গলিয়ে বেড়িয়ে গেছে রাঘব বোয়ালরা।চুনাপুটি ধরে আইওয়াশ করেছে আরএনবির সদস্যরা।তেল চুরির ঘটনায় প্রায় ১০ লক্ষ টাকা ঘুষ বানিজ্যে বেড়িয়ে গেছে রাঘব বোয়ালগুলো বলে একটি নির্ভরযোগ্য সুত্র নিশ্চিত করেছে।ঐ সুত্রটি আরও নিশ্চিত করেছে যে, তেল চুরির সাথে আরএনবির কিছু অসাধু সদস্য জড়িত আছে।অথচ তারাই তেল চোর ধরতে গিয়ে হয়রানি করছে সাধারণ রেলকর্মচারীদের।প্রকৃত অপরাধীকে আড়াল করতেই ইন্সেপেক্টর হাবিব এই কাজ গুলো করছে বলে জানা গেছে।২০১৯ সালে তৎকালীন চিফ কমান্ডেন্ট ফাত্তা ভুইয়ার মারফতে ১৫ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ১ নম্বর ইন্সেপেক্টর হয়েছেন হাবিব।মুলত সেই টাকা রিকভারী করতেই নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়েন তিনি।

অনিয়ম করে নগরীর পাঠারমোড় নিমতলায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের বাড়ি করেছে তিনি।তার অধিনস্থদের কাছ থেকে মাসিক মাসোয়ারার মাধ্যমে ডিউটি বন্টন, কমিশনের মাধ্যমে ডিউটি পোস্টিং করে থাকেন তিনি।২৮ জুলাই চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর বনলতা ট্রেনে আমনুরা স্টেশনে তেল চুরি ঘটনা ঘটে।সেই ঘটনায় প্রকৃত চোরদের ছেড়ে দিয়ে পাওয়ারকারের মামুন ও সুমন নামের দুই রেলকর্মচারীকে আটক করে অফিসে না নিয়ে বাহিরে বসেই ৫০ হাজার টাকায় রফাদফা করেন ইন্সেপেক্টর হাবিব ও মুসা।যদিও তেল চুরি সেই ঘটনায় পাকশি ডিবিশনের ডিইই তিন সদস্যের কমিটি করে মামুন ও সুমন শেখের বিরুদ্ধে তদন্ত দিয়েছেন।তবুও তাদের ছেড়ে দিয়ে আইওয়াশের নামে আরএনবির সদস্য লাল চানের সহযোগিতায় অন্য একজনকে আটক দেখিয়েছে আরএনবি।উক্ত ঘটনায় তেল চুরি হয়েছে ১০০ লিটার।উদ্ধার দেখানো হয়েছে ৬০ লিটার, যা খোদ ইন্সেপেক্টর হাবিব নিশ্চিত করেছে।অপর দিকে এর আগে রাজশাহী রেলস্টেশনের তেল চুরি ঘটনায় কয়েক দফায় রেলওয়ের অনেক উদ্ধর্তন কর্মকর্তার জড়িত হওয়ার বিষয়ে ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের উৎকোচন নিয়েছেন ইন্সেপেক্টর হাবিব।যদিও বর্তমান চীফ কমান্ডেন্ট আশাবুল ইসলাম এগুলো অবগত নয়, কারণ তিনি সবে মাত্র পশ্চিম রেলের চীফ হিসাবে যোগদান করেছেন।

তবে তিনি যোগদানের পরপরই বেশ কয়েকটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন যা সত্যি প্রশংসিত।চীফ কমান্ডেন্টের চোখকে ফাঁকি দিয়ে নানা অনিয়ম করেই চলেছে ইন্সেপেক্টর হাবিব।একটি নির্ভরর্যোগ্য সূত্র জানান, বর্তমান চীফ কমান্ডেন্ট কোন অপরাধকে আশ্রয় ও প্রশ্রয় দেন না।যা তার পূর্বের কাজের রেকর্ড দেখলেই বোঝা যায়।কথা বলতে পশ্চিম আরএনবি চীফ কমান্ডেন্ট আশাবুল ইসলাম বলেন, আমি আজকের অর্থ্যাৎ ২৮ জুলাই এর বিষয়টি অবগত।আমনুরায় তেল চুরি ঘটনা ঘটেছে।দুই বস্তা তেলসহ এক তেল চোরকে আটক করা হয়েছে।তবে রেল কর্মচারী মামুন ও সুমনের বিষয়টি সঠিক নয় বলেও তিনি জানান।অন্যান্য বিষয়ে কথা বললে তিনি বলেন পূর্বের ঘটনাগুলোর বিষয়ে আমি কিছুই বলতে পারবো না।তবে বর্তমানে এরুপ করার কোন সুযোগ নাই।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ।