রবিবার ১৭ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

বাঁধের মুখে পুকুর, ডুবল সহস্রাধিক হেক্টর জমির ফসল

আপডেটঃ ৩:২১ অপরাহ্ণ | জুলাই ২৭, ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহীর পবার পূর্বাঞ্চলের মাঠের পানি নিষ্কাশনের জন্য বৈরাগির খালের মুখে বাঁধ দিয়ে পুকুর বানিয়ে মাছ চাষ শুরু করছে দুর্গাপুরের কিছু মানুষ।ফলে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় পবার কাঁটাখালি, হরিয়ান, পারিলা ও বড়গাছি এলাকার সহস্রাধিক হেক্টর জমির ফসল নিমজ্জিত হয়েছে।ভেসে গেছে অনেক পুকুরের মাছ।এনিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।জরুরীভাবে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে এলাকার তিন শতাধিক মানুষের স্বাক্ষরিত একটি স্মারকলিপি ২৬ জুলাই রোববার বিকাল ৪ টায়,জেলা প্রশাসক ও পবা নির্বাহী কর্মকর্তাকে দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, পবার পূর্বাঞ্চলের পানি দুটি খাল বেয়ে অর্থাৎ কাটাখালি, হরিয়ান, মল্লিকপুর, তেবাড়িয়া কাঠালপাড়া, সারাংপুর হয়ে একটি খাল বেয়ে এবং অপরটি কৃষ্টগঞ্জ, কালুমোড়, ঘোলহাড়িয়া হয়ে শিরোলিয়া মৌজার ভিতর দিয়ে দুটি খাল দুর্গাপুর উপজেলার পলাশবাড়ি মৌজার মধ্যে বৈরাগির খাল বেয়ে হোজা নদীতে পড়ে।পরে হোজা নদী পড়ে বারনই নদীতে।কিন্তু দুর্গাপুরের কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি পলাশবাড়ি মৌজার বৈরাগির খাল দখল করে সেখানে বাঁধ দিয়ে পুকুর বানিয়ে মাছ চাষ শুরু করেছে।এতে পবার পুর্বাঞ্চলের পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হওয়ায় সহস্রাধিক হেক্টর জমির বিভিন্ন ফসল নিমজ্জিত হয়েছে।শুধু তাই নয় পানি উঠেছে কয়েকশো বাড়িতে।এনিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।জরুরী ভাবে এই পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করার জন্য রোববার পারিলা ইউনিয়নের ৩ শতাধিক মানুষ স্বাক্ষরিত এক স্মারকলিপি জেলা প্রশাসক ও পবা ইউএনওকে দেয়া হয়েছে।

পারিলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল বারি ভুলু বলেন, পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় বাড়িঘরে পানি উঠে তার ইউনিয়নের শতশত মানষ মানবেতর জীবনযাপন করছে।পানিতে ডুবেছে বিভিন্ন বিলের জমির ফসল।এছাড়া গবাদিপশু নিয়ে মানুষ বেকায়দায় পড়েছে।তিনি জরুরীভাবে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।এদিকে গত শুক্রবার বিকালে এসব নিমজ্জিত ঝুঁকিপূর্ণ স্থান পরিদর্শন করেন রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন।এ সময় তার সাথে ছিলেন পবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর রহমান।ভুক্তভোগিরা জানান, দূর্গাপুরের উপজেলার পলাশবাড়িতে বৈরাগির খালে পানি নিষ্কাশন পথ বন্ধ করে মাছচাষ করার কারণে পবা উপজেলার কাঁটাখালি, হরিয়ান ও পারিলা ইউনিয়নের ফলিয়ার বিলসহ অনেক স্থানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

গত শুক্রবার রাতেই পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করার লক্ষ্যে পবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।এ সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী-৫ (দুর্গাপুর-পুঠিয়া) আসনের সংসদ সদস্য ডা. মনসুর রহমান, রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, পবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর রহমান, দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম,পবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিমুল আকতার, দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসীন মৃধা ও রাজশাহী জেলা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী সানিউল হক প্রমুখ।সভায় পানি নিষ্কাসন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয়।কিন্তু এখন পর্যন্ত পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় এলাকায় চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।যেকোন সময় সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

IPCS News /রির্পোট, আবুল কালাম আজাদ (রাজশাহী)।