বুধবার ২৭শে মে, ২০২০ ইং ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

নয়াপল্টনে বিক্ষোভে আধাঘণ্টার আল্টিমেটাম এ ১০ মিনিট এর মধ্যে কর্মসূচি শেষ করেন-রিজভী

আপডেটঃ ৭:২১ অপরাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০২, ২০২০

অনলাইন ডেস্কঃ

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে।রোববার হরতাল সমর্থনে নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে হাজির হয়েছে উত্তর সিটিতে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল।তিনি দুপুর ২টার কিছু পরে নয়াপল্টন আসেন।বেলা ১১টায় দক্ষিণের প্রার্থী ইশরাক হোসেন নয়াপল্টন আসেন।পরে দুই প্রার্থী দলীয় কার্যালয়ের সামনে ফুটপাতে অবস্থান নেন।এসময় তাদের সঙ্গে শতাধিক নেতাকর্মীকেও মিছিল করতে দেখা যায়।এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল হক, নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরীসহ বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী।

এ সময় ইশরাক হোসেন বলেন, নির্বাচনের ফলের যে পরিমাণ ভোট কাস্ট দেখানো হয়েছে, তার চাইতে অনেক কম ভোট কাস্ট হয়েছে। আমরা দেখেছি– আওয়ামী লীগ সমর্থকরা সাধারণ ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে দেননি। যে ফল ঘোষণা হয়েছে, সেটি সম্পূর্ণ মনগড়া একটি সাজানো ফল। আমরা এ ফল প্রত্যাখ্যান করছি।

হরতালের সমর্থনে এই কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে ঢাকা উত্তরে বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়াল সাংবাদিকদের বলেন, ‘ন্যূনতম সুষ্ঠু কোনো ভোট হয়নি। এ রকম নির্বাচন আমরা কখনোই প্রত্যাশা করেনি। আমরা এই ভোট চুরির নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘হরতালের দাবি সাধারণ জনগণের কাছ থেকে এসেছে। আর আমরা সাধারণ জনগণের পাশে আছি, তাদের পক্ষে আছি।’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় নেতারা সকাল থেকেই কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন। রিজভীসহ কেন্দ্রীয় নেতারা চেয়ারে বসা। আর অন্য নেতাকর্মীরা তাদের সামনে ফুটপাতে বসা। ইশরাক আসেন বেলা ১১টার দিকে। তিনি এসেই বিক্ষোভরত নেতাকর্মীদের মাঝে বসে পড়েন।

অনেকে তাকে সম্মান দেখিয়ে পেছনে নেতাদের সঙ্গে চেয়ারে বসতে বললেও তিনি বসেননি। কর্মীদের পাশে ফুটপাতেই বসে পড়েন।এ সময় নিজেই স্লোগানের নেতৃত্ব দেন ইশরাক। তার সঙ্গে শতাধিক নেতাকর্মী ফুটপাতে বসে স্লোগান দিচ্ছেন।বিএনপি নেতাকর্মীদের ‘মুক্তি মুক্তি মুক্তি চাই, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই’, ‘ভোট চোর ভোট চোর, শেখ হাসিনা ভোট চোর’, ‘আজকের হরতাল, চলছে-চলবে’, ‘প্রহসনের নির্বাচন মানি না, মানব না’ ইত্যাদি স্লোগানে মুখর হয়ে ওঠে নয়াপল্টন।..

বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে বিএনপির নেতাকর্মীদের কাছে যান পুলিশের মতিঝিল জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম। তিনি বিএনপি নেতাকর্মীদের আধাঘণ্টার মধ্যে সেখান থেকে সরে যেতে নির্দেশ দেন।তখন রিজভী আহমেদ পুলিশের কাছ থেকে ১০ মিনিট সময় চান।কিন্তু দুপুরে খাবার ও নামাজের কথা বলে ৭ মিনিটের মধ্যে কর্মসূচি শেষ করেন তিনি।

অবস্থান কর্মসূচি শেষ করার সময় রুহুল কবির রিজভী বলেন, আমাদের এ কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ। সিটি নির্বাচনে ইভিএমের মাধ্যমে যে ভোট জালিয়াতি হয়ে গেল তার প্রতিবাদ জানাতেই আমাদের এই কর্মসূচি। এ দেশের ১৬ কোটি মানুষের জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সরকার আটকে রেখেছে। আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি এই অন্যায়ের দুই বছর পূর্ণ হবে। আমরা এরও প্রতিবাদ করছি।

তিনি বলেন, আমরা সরকারের অন্যায়-অবিচারগুলো তুলে ধরতে এই অবস্থান নিয়েছি। ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন জায়গায় আমাদের নেতাকর্মীরা এ রকম শান্তিপূর্ণ অবস্থান নিয়ে কর্মসূচি পালন করছে।

হরতালের সমর্থনে রোববার ভোর থেকে শুরু হওয়া বিএনপির কর্মসূচি চলে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। পুলিশের দেওয়া আলটিমেটামের পর নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে থেকে তখন চলে যান দলটির নেতা-কর্মীরা। বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছিলেন, মধ্যাহ্নভোজের বিরতি ও নামাজ শেষে আবারও তারা বিক্ষোভ দেখাবেন। ঘোষণা অনুযায়ী দুপুর দুইটা থেকে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন তারা।


IPCS News / রির্পোট।