শনিবার ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

রামেক হাসপাতালের ঘটনার উচ্চ তদন্ত চান এমপি বাদশা

আপডেটঃ ৪:১১ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ২৪, ২০২২

নিউজ ডেস্কঃ

রাজশাহী:- বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের মৃত্যু রহস্য ধামাচাপা দিতে হাসপাতালে হামলা করা হয়েছে বলে মন্তব্য করে লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত দাবি করেছেন হাসপাতাল পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা।রোববার বিকেলে রাজশাহীর হড়গ্রামে তার রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং করে এ দাবি জানান তিনি।বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, আগামী ২৬ অক্টোবর হাসপাতাল পরিচালনা পরিষদের জরুরী সভা ডাকা হয়েছে।ওই সভার পর আমরা স্বারাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠাবো; যে উচ্চ পর্যায়ের একটি টিম এসে এ ঘটনার তদন্ত করুক। লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত করতে হবে।কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের ঘাতক কে, হাসপাতালে মামলা কারা করেছে তাদের চিহ্নিত করাতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজশাহীতে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি চেষ্টা চালানো হয়েছে উল্লেখ করে সাংসদ বাদশা বলেন, যুদ্ধের সময়ও হাসপাতালে হামলা করা হয়না।সেখানে কিছু ছাত্র এসে হাসপাতালে ভাঙচুর করে গেলে, চিকিৎসক নার্সদের মারধর করল, তাদের অবরুদ্ধ করে রাখল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষকের ভুমিকাও রহস্যজনক বলে মন্তব্য করেন সাংসদ বাদশা বলেন, ঘটনার সময় হাসপাতালে কয়েকজন শিক্ষকও ছিল।ছাত্রদের বাধা না দিয়ে উস্কানি দিয়েছে।নিহত ছাত্রের পরিবারকে ম্যানেজ করে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ তড়িঘরি করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।হাসপাতালে পৌছার আগে ওই ছাত্র মারা গিয়েছিল তার প্রমান আমাদের কাছে আছে বলেও জানান তিনি।

সাংসদ বলেন, দুপুরে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সঙ্গে আমরা বৈঠক করেছি।রোগিদের কথা বিবেচনা করে তাদের কর্মবিরতি প্রত্যাহারের জন্য বলেছি।তারা আমাদের কথা শুনেছে।সাময়িকভাবে তারা কর্মবিরতি প্রত্যাহার করেছে।সন্ধ্যা থেকে সবাই কাজে যোগ দিবে।

গত বুধবার রাত আটটার দিকে হলের তৃতীয় তলার বারান্দা থেকে পড়ে যান মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র শাহরিয়ার।পরে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।এর পর চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ তুলে হাসপাতালে ভাঙচুর চালায় রাবি শিক্ষার্থীরা এক পর্যায়ে ইন্টার্ন চিকিৎসক ও রাবি শিক্ষার্থীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষে পৃথক দুইটি মামলা করেন।এছাড়াও ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারসহ বিভিন্ন দাবিতে রোববার পৃথক বিক্ষোভ করে রাবি ছাত্র ও ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

IPCS News : Dhaka : আবুল কালাম আজাদ : রাজশাহী।