শনিবার ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনামঃ

মদন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদপ্রার্থী বীর-মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কদ্দুস।

আপডেটঃ ২:৪০ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ০৬, ২০২২

নিউজ ডেস্কঃ

নেত্রকোনা:- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মদন উপজেলা শাখার ত্রি বার্ষিক সন্মেলন আগামী ১১ অক্টোবর।সন্মেলনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছেন নেতাকর্মীরা।উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বে আসতে আওয়ামী লীগের হাই কমান্ডারের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন অনেকেই।পিছিয়ে নেই মদন উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।তিনিও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদপ্রার্থী।সার্বিক বিষয়ে কথা হয় বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কদ্দুস সাহেবের সাথে।তিনি বলেন,আমি দলের অনুপ্রবেশ কারী নয়।১৯৬৫ সালে আমি নবম শ্রেণি ছাত্র অবস্থায় রাজনীতি শুরু করি।১৯৬৯ সালে কেদ্রীয় সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম কমিটি গঠন করে তৎকালীন বাংলা গণমানুষের নেতা অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল রাজনৈতিক মুক্তির দাবি ওটা ৬ দফা বাস্তবায়নে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলি।

১৯৭০ সালে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে মুসলিম লীগ, পিডিপি ও জামায়াত এর বিরুদ্ধে মারমুখী ভূমিকা পালন করি।১৯৭১ সালে ৭ এই মার্চের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে আমি সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক নির্বাচিত হই।জন প্রতিনিধিদের হাতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা তুলে দেওয়ার জন্য গ্রামে গ্রামে গিয়ে ছাত্র, যুবক,কৃষক জনতাকে মুক্তিযোদ্ধে অংশ গ্রহণের জন্য উদ্ভদ্ধ করি।

১৯৭২ সালে মদন উপজেলার জাসদের উস্কানের ফলে মদন থানা ছাত্র লীগের শূন্যতা বিরাজ করে।এ সময় ছাত্র লীগের আহবায়ক কমিটি গঠন করি।পরবর্তীতে মদন উপজেলা ছাত্র লীগের সভাপতি নির্বাচিত হই।১৯৭৪ সালও উপজেলার ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হই।১৯৮৩ সালে মদন থানার  আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হই।

১৯৯৫ সালে মদন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য হই।২০০৩ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে প্রতিদন্দিতা করি।২০১৫ সালে ২০ জুন মদন উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি বার্ষিক সন্মেলন প্রতিদন্ধিতা করে সভাপতি পদে নির্বাচিত হই।

বর্তমানে দলকে গজানোর জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ ও মাননীয় সাংসদ রেবেকা মমিনের পরামর্শে নিজেকে সব সময় নিয়জিত রেখেছি।আমি কোন টেন্ডার বাজি চাঁদাবাজি মাদক কোন অপরাধের সঙ্গে কোনদিন জড়াইনি।

নিজের কাছে আপনি যোগ্য প্রার্থী কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে বীর-মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কদ্দুস সাহেব বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে দেশবাসী ও আওয়ামী লীগের হাই কমান্ড যেমন ব্যক্তিত্ব খুজঁছেন, আমি মনে করি প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমি যোগ্য।স্বাভাবিক ভাবে উপজেলার সভাপতি পদে প্রার্থী হতে পারি।

আবার সভাপতি পদে মনোনীত হলে আপনার পরিকল্পনা কি, জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা মোতাবেক ও বর্তমান সাংসদ রেবেকা মমিনের পরামর্শে উপজেলা আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজাতে চাই। 

IPCS News : Dhaka : শহীদুল ইসলাম : নেত্রকোনা।